পটুয়াখালী দশমিনা সড়কের বেহাল দশা

91
পটুয়াখালী দশমিনা সড়কের বেহাল দশা
পটুয়াখালী দশমিনা সড়কের বেহাল দশা

দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা
পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার আন্তঃজেলা সড়কটি এখন বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে। এলজিইডির সড়কটি ফি বছর উন্নয়ন বা সংস্কার করা হলেও বর্ষায় বড় বড় গর্ত এবং খানাখন্দের সৃস্টি হয় । ফলে সড়ক দিয়ে চলাচলে যানবাহনসহ ভোগান্তিতে দশমিনা ও বাউফল উপজেলার প্রায় ৬লাখ মানুষ। স্থানীয়দের দাবি যেনতেন সড়ক উন্নয়ন না করে টেকসই উন্নয়ন করা হোক।
সরেজমিনে স্থানীয় ও ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বলে জানা যায়,দশমিনা ভায়া বাউফলের ভাঙ্গা ব্রিজ হয়ে লোহালিয়া খেয়াঘাট পর্যন্ত ২১কিঃমিঃ সড়কটিতে বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দের কারনে গাড়ি ঠেলাঠেলি করে দীর্ঘপথ অতিক্রম করতে প্রায় এক থেকে দেড় ঘন্টারও অধিক সময় চলে যায়। অন্তরা পরিবহনের সুপারভাইজার আনোয়ার আনু জোমাদ্দার জানান,ভাঙ্গাচোরা সড়ক দিয়ে গাড়ি চলাচলে মেশিনারী পার্স নষ্ট হয়ে যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেয়। দশমিনা থেকে পটুয়াখালী জেলা সদরে নিয়মিত যাতায়াতকারী আইনজীবি মো.ফুয়াদ হোসেন ও মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান, যেখানে ৩০/৩৫ মিনিটের অধিক সময় লাগার কথা নয় সেখানে এক দেড় ঘন্টার অধিক সময় চলে যাওয়ায় যথাসময়ে কোর্টে উপস্থিত হতে পারি না । বেতাগী সানকিপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ফিরোজ আলম জানান, বাউফলের ভাঙ্গা ব্রিজ এলাকা থেকে দশমিনা উপজেলা সদর পর্যন্ত প্রায় ৮/৯ কিঃ মিঃ সড়কের অধিকাংশ বড় বড় গর্ত ও নালাখান্দা হওয়ায় চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় পটুয়াখালী জেলা সদরে জরুরী কাজে জন্য যাওয়া মানুষদের। তাদের দাবি প্রতিবছর যেন তেন সড়ক উন্নয়ন না করে টেকসই উন্নয়ন করা হোক ।
দশমিনা উপজেলার স্থানীয় বাসিন্দা মিজানুর রহমান পঞ্চমালি বলেন, দশমিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে জরুরী সেবা দানে প্রসূতি অথবা অন্য যে কোন রোগি পটুয়াখালী অথবা বরিশাল সেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরন করা হলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর এম্বুলেন্সটি কালাইয়া-বাউফল হয়ে দীর্ঘ সময় পার হয়ে যেতে হয়। এতে করে রোগিদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় । ঐ রাস্তটি দশমিনা বাসির জন্য জরুরী । এলজিইডির দশমিনা উপজেলা প্রকৌশল মোঃ মকবুল হোসেন জানান.এই সড়কটির দশমিনার অংশের সাড়ে ৪কিঃমিঃ টেন্ডার হয়েছে।