নাতির প্রতারণায় সম্বলহীন আমেনা বেগম

101
নাতির প্রতারণায় সম্বলহীন আমেনা বেগম
নাতির প্রতারণায় সম্বলহীন আমেনা বেগম

হিলি প্রতিনিধি
দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর (হিলি) উপজেলার আলীহাট ইউনিয়নের কুশাপাড়া গ্রামের মৃত আমজাদ আলীর স্ত্রী আমেনা বেগম (৯০)। স্বামী মারা গেছে ৩০ বছর আগে। ছেলে নেই, একটি মেয়ে ছিলো সেই মেয়ে মারা যাবার পরে নাতিকে নিয়ে দুঃখ কষ্ট বুকে নিয়ে জীবন যাপন করছিলে ৯০ বছর বয়সী আমেনা বেগম। হঠাৎ নাতি (মেয়ের ছেলে) বৃদ্ধার জমি লোভ দেখিয়ে নিজের নামে লেখে নেন। তার পর থেকে বৃদ্ধা আমেনা বেগমকে আর থাকতে দেননা। বিভিন্ন সময় অত্যাচার করেন। অমানবিক অত্যাচার আর শেষ সম্বল টুকু হারিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনও’র কাছে ন্যায্য বিচারের আশায় ঘুরছেন তিনি। তবে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বয়স্ক ভাতার ব্যবস্থা হয়েছে তার।

আরও পড়ুনঃ

ফেসবুক স্টাটাস দেখে রাতের আঁধারে ত্রাণ নিয়ে হাজির সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা চপল

মহামারীর মধ্যে রূপগঞ্জ থানায় আটক বানিজ্য

কথা হয় ৯০ বছর বয়সী আমেনা বেগমের সাথে। তিনি জানান, আমেনা বেগম কাঁদতে কাঁদতে বলেন মোর তোরা বিচার করে দেও। মুই আর অত্যাচার সহ্য করবা পারছু না। নাতি কইছে খাওন দিবি, কাপড়া দিবি, যতিদন মুই বাঁচমু সব দিবি। এই বলে মোর তিন শতক জায়গা-কুনা লিখে নিছে। এখন ক্যাছুই (কিছুই) দেয় না। ঘাড়ধাক্কা দিয়ে মোক বায়ীত্তে (বাড়ি থেকে) বেড় করে দেছে। তোরা এর বিচার করে দেও, মোর স্বামীর ভিটেবাড়ি নিয়ে দেও মোক।

তিনি আরো জানান, প্রায় ৩০ বছর আগে তার স্বামী মারা যায়, রেখে যায় একটি মেয়ে সন্তান। অনেক কষ্টে মেয়েটিকে বড় করে এবং বিয়ে দেন তিনি। পরে মেয়ে আর নাতি-নাতনি নিয়ে স্বামীর রেখে যাওয়া তিন শতকের উপর থাকেন তারা। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস একমাত্র মেয়েটিও মারা যায়। আবারও কষ্ট করে নাতি-নাতনিকে মানুষ করেন এই বৃদ্ধা মহিলা। বৃদ্ধা আমেনার এখন অনেক বয়স হয়ে গেছে, চলতে ফিরতে পারেন না তেমন, লাঠির উপর ভর করে কোন রকম চলেন তিনি।

নাতি শাহার আলম তাকে বিভিন্ন আশা দেখিয়ে তার শেষ সম্বল টুকু (বাড়িভিটে) নিজ নামে লেখে নেন। কথা ছিলো যতদিন তিনি বেঁচে থাকবেন ততোদিন নাতি শাহার আলম তার সকল ভরণপোষণ চালিয়ে যাবে। কিন্তু কোন শর্তও রাখছেন না তার নাতি। বৃদ্ধ বয়সে এখন প্রায় সময় তাকে অনাহারে থাকতে হয়। খাদ্য-খাবার আর পোশাকাদি দেয় না নাতি। আবার বাড়ি থেকে বারংবার বের করেও দেওয়া হয় তাকে। শুধু তাই নয় বৃদ্ধা আমেনাকে শারীরিক অত্যাচারও করে নাতি, বহুবার গলা ধাক্কা দিয়ে বাড়ি থেকে বেড় করে দিয়েছে পাষন্ড নাতি শাহা আলম।

হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নুর-এ আলম জানান, আলীহাট ইউনিয়নের কুশাপাড়া গ্রামের বয়স্ক আমেনা বেগম তার বিচার চাইতে আমার নিকট এসেছিলেন। আমি তৎক্ষণাৎ উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে অবগত করেছি। চেয়ারম্যান বিয়ষটি তদন্ত সাপেক্ষে সমাধান করবেন এবং প্রয়োজনে আমি নিজেই ঐবৃদ্ধার বাড়িতে গিয়ে তার সমস্যার সমাধান করবো।

হাকিমপুর উপজেলার চেয়ারম্যান হারুন উর রশিদ হারুন জানান, আমার কাছে কুশাপাড়া গ্রামের বৃদ্ধা মহিলা আমেনা বেগম তার নাতির বিষয়ে অভিযোগ করেছে। তিনি একেবারেই বৃদ্ধ মানুষ, বিষয়টি অমানবিক এবং দুঃখজনক। আমি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছি এর সঠিক ব্যবস্থা নিতে, প্রয়োজনে ইউএনও’কে নিয়ে আমি সরেজমিনে যাবো।