দশমিনায় সড়কের ভিত্তিপ্রস্তরে ৩ বছর অতিবাহিত

63
দশমিনায় সড়কের ভিত্তিপ্রস্তরে ৩ বছর অতিবাহিত
দশমিনায় সড়কের ভিত্তিপ্রস্তরে ৩ বছর অতিবাহিত

দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা
পটুয়াখালী দশমিনা উপজেলায় রাস্তার কাজের ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন ২বছর ৭মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত নির্মান কাজ শুরু হয়নি। উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ন সড়ক সদর ইউনিয়ন পরিষদ হতে বড় বাড়ি হয়ে তারার বাঁধ পর্যন্ত রাস্তাটি গত ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ ইং সনে জেলা পরিষদ, পটয়াখালীর অর্থায়নে এডিপি ২০১৮-২০১৯(১ম পর্যায়) ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন পটুয়াখালী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ খলিলুর রহমান মোহন, স্থানীয় সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা এমপি,ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ লিটন।
২ বছর ৭ মাস সময় কাল অতিবাহিত হলেও আজও বাস্তবায়ন হয়নি রাস্তাটি । এলাকায় প্রায় ১হাজার লোকের বসবাস। রাস্তাটি দিয়ে প্রতিদিন বেগম আরেফাতুন্নেছা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়,সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ,সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়, ডাঃ ডলি আকবর মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীরাসহ মৎস্য,গাছ, চালবাহি গাড়ি আসা যাওয়া করে থাকে । ঐ এলাকার লোকজন সহ শিক্ষার্থীরা প্রায় তিনটি বছর চরম ভোগান্তিতে বাজার ও স্কুলে যাওয়া আসা করতে হচ্ছে । ঐ এলাকার বাসিন্দা ও ভুক্তভোগি মোঃ জামাল মাস্টার ও জাহাঙ্গীর প্যাদা বলেন, এই রাস্তা দিয়ে স্কুল/কলেজে শিক্ষার্থীরা আসা যাওয়া করে। উপজেলা সদর বাজারের সাথে এই রাস্তাটি বানিজ্যিক কেন্দ্র । বর্ষার সময় অর্ধ হাটু পর্যন্ত কাঁদা পার হয়ে শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠানে আর সাধারন জনগন যায় বিভিন্ন বাজারে আসা যাওয়া করে থাকে। তিন বছর হতে যাচ্ছে আজও রাস্তার কাজ বাস্তবায়ন হলো না। বিভিন্ন সময় ঘটে দুর্ঘটনা। এলাকাবাসী রাস্তাটি দ্রুত চলাচলের উপযোগী করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা এমপি মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করছে। জেলা পরিষদ সদস্য জাকির হোসেন ভুট্রো বলেন, জেলা পরিষদের অর্থায়নে ৪ লক্ষ ১০হাজার টাকা বরাদ্দ দিলে বেগম আরেফাতুন্নেছা বালিকা বিদ্যালয় থেকে বড়বাড়ি পর্যন্ত কাজ হয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা এমপি বলেন, রাস্তাটি অতি জনগুরুত্বপূর্ন। রাস্তাটি প্রজেক্ট আকারে দেয়া হয়েছে এবং রাস্তার আইডি নং পড়েছে। পরবর্তী বরাদ্দের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।